আসন বণ্টন নিয়ে বৈঠক : শরিকদের অপেক্ষায় রাখলো আওয়ামী লীগ

রাজনীতি, ৫ ডিসেম্বর ২০২৩, 23 বার পড়া হয়েছে,

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৪ দলের শরিক দলগুলোর আসন বণ্টন নিয়ে বৈঠক দীর্ঘ হওয়ায় সোমবার (৪ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত আসেনি। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ব্রিফ করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগ সূত্র জানিয়েছে, ১৪ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন জোটনেত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে সন্ধ্যা ৬টায় বৈঠক শুরু হয়। রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত শেষ বৈঠক হয়নি। ফলে জোটের শরিকদের কতটি আসনে ছাড় দেওয়া হবে, সে বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে জানানো হয়েছিল, ১৪ দলের বৈঠকের বিষয়ে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতি কার্যালয়ে ব্রিফ করবেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। পরে দলটির দফতর থেকে বলা হয়, বৈঠক শেষ না হওয়ায় এখন ব্রিফ করা হবে না। মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় একই স্থানে ব্রিফ করবেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৈঠকে ১৪ দলের মুখপাত্র ও সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় পার্টির (জেপি) সভাপতি আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, গণতান্ত্রিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেনসহ জোটের শরিক দলগুলোর শীর্ষ নেতারা অংশ নেন।

১৪ দল সূত্র জানায়, এবার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) আসন চেয়েছে আটটি। বর্তমানে দলটির সংসদ সদস্য আছেন তিন জন।বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি আসন চায় সাতটি। এই সংসদে দলটির সংসদ সদস্য আছেন তিন জন। তরিকত ফেডারেশনের বর্তমানে একজন সংসদ সদস্য থাকলেও এবার পাঁচটি আসন আশা করছে তারা। জাতীয় পার্টি (জেপি) পাঁচটি আসন দাবি করলেও বর্তমানে দলটির একজন সংসদ সদস্য আছেন। সাম্যবাদী দলের কোনও সংসদ সদস্য না থাকলেও এবার একটি আসন চায় তারা।

জোটের বাকি শরিক দলগুলোর বর্তমান সংসদে প্রতিনিধিত্ব নেই, তাদের প্রত্যাশাও কম নয়। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিক দলগুলো দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিলেও দলীয়ভাবে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছে। এবার জোটগতভাবে নির্বাচন হবে কিনা, আর হলেও আসন বণ্টনের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি। এ নিয়ে জোটের শরিক দলগুলোতে এক ধরনের ধোঁয়াশা রয়েছে। এ নিয়ে ভেতরে ভেতরে ক্ষোভ থাকলেও প্রকাশ্যে মুখ খুলছেন না শরিক দলের নেতারা। তারা বলেছেন, ১৪ দল গঠনের পর বিগত তিনটি নির্বাচন জোটগতভাবে হয়েছে। তখন আসন বণ্টন নিয়েও আগেভাগে তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছে আওয়ামী লীগ।

দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করার আগেই জোটের আসন বণ্টনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। তবে এবারের নির্বাচনের বিষয়ে তেমনটি এখনও ঘটেনি। আসন বণ্টনের বদলে উল্টো জোটগতভাবে নির্বাচন করা না করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আওয়ামী লীগ। বিষয়টি পরিষ্কার না হওয়ায় মূলত ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।