তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত

সারাদেশ, 5 September 2021, 88 বার পড়া হয়েছে,

নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
হঠাৎ করে আবারো তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাঙ্গনের আতংকিত হয়ে পরেছে তিস্তা পাড়ের বাসিন্দারা।
তিস্তা বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র সুত্র জানায় উজানের ঢল আর ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে তিস্তা নদীতে।
এরফলে তিস্তা পারের দশটি ইউনিয়নের প্রায় দশ হাজারেরও বেশি পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।
এদিকে চার দফায় পানি বৃদ্ধির ফলে জনমনে ভাঙ্গনের আতংক সৃষ্টি হয়েছে।
নদী ভাঙ্গণের মুখে ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের ভেন্ডাবাড়ির চরের দুই নম্বর স্পারবাধ নিয়ে আতংকে আছেই স্থানীয় বাসিন্দারা।
চাপানো সোনাখুলী এলাকার বাসিন্দা ময়নুল জানান, হঠাৎ করে আবারো তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদী পারের চর ভরট এলাকার এক হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। তারা কষ্টে আছে
তিস্তার বাধ এলাকার নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন তিস্তা নদীতে ড্রেজং ও পুঃন খনন না করার ফলে পলি ও বালু জমে ভরাট হওয়ার কারনে নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় এসব এলাকায় ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। তাই নদীটি ড্রেজিং ও পুনঃখনন করার দাবী জানান তিনি।
বাধ এলাকার বাসিন্দা আলম জানান নদীতে ড্রেজিং এ-র মাধ্যমে ১৫ থেকে ২০ ফিট গভীর করলে ভাঙ্গন সহ বন্যা হওয়ার আশংকা থাকবে না। তাই নদীটি খনন করার দাবী জানাই।
শৌলমারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রানজিত রায় পলাশ বলেন, তিস্তায় পানিবন্দি হয়ে পড়ায় বাড়ি থেকে বের হতে পারছে চর এলাকার
মানুষরা। তারা অত্যন্ত কষ্টের মধ্যে দিনাতিপাত করছে।
ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান বলেন, ভেন্ডাবাড়ি চরের দুই নম্বর স্পারটির দেড়’শ মিটার ভেঙ্গে যায়। এরফলে প্রায় দুই’শ পরিবারের ঘরবাড়ি বিলিন হয়ে গেছে। আবারো পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে ভাঙ্গনের আশংকায় রয়েছে ও-ই এলাকার মানুষ। স্পেয়ার বাঁধটি রক্ষা করা না গেলে সবকিছু বিলিন হয়ে ক্ষতির সম্মুখীন হবে এলাকার মানুষের।
এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আসফাউদৌলা জানান, উজানের ঢলে তিস্তায পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ওই সকল এলাকা নজরদারিতে রেখেছি আমরা। কয়েক দফায় পানি বৃদ্ধির ফলে যেসব বাঁধে ভাঙ্গণ দেখা দিয়েছিলো সেগুলো মেরামত করা হয়েছে। তারপরও আমরা দেখছি কোথাও সমস্যা তৈরি হলে তাৎক্ষনিক সমাধানের চেষ্টা করা হবে।