আখাউড়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৫

আখাউড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 25 July 2021, 159 বার পড়া হয়েছে,

আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে।
শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের নয়াদিল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ওই রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষে বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাটের ঘটনাও ঘটে। খবর পেয়ে আখাউড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় স্বপন নামে একজন হামলাকারীকে আটক করে পুলিশ।
এ সংঘর্ষের ঘটনায় উভয় পক্ষই আখাউড়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
সংঘর্ষে আহত হওয়া লোকজনের মধ্যে সোলাইমান (২৫), হিরন (৩০), শানু (৫০) শরুফা (৩৫), সুফিয়া (৬০), সবুজ (২৮), আলামিন (৩২), আব্দর রউফ (৪০), স্বপন (৪০) অনিক (২৮) ইদন (৪০) ও ওয়াহাব (৫৫) আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসাপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় গোষ্ঠীগত আধিপত্য বিস্তারসহ পারিবারিক তুচ্ছ ঘটনায় ভাইয়ে ভাইয়ে দ্বন্দ্ব নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের নয়াদিল গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ ও তার ছোট ভাই আব্দুল ওয়াহাব মিয়ার মধ্যে শত্রুতা চলছিল। এরই জের ধরে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদের পক্ষ নেয় বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সহিদ মেম্বার এবং আব্দুল ওয়াহাব মিয়ার পক্ষ নেয় গ্রামের বাবুল মিয়ার গোষ্ঠীর লোকজন। গ্রামের তুচ্ছ কোন ঘটনায় দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল।
ঈদের পরদিন গ্রামে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ আরও বাড়তে থাকে। এসব বিষয়টি নিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ ও তার ছোট ভাই আব্দুল ওয়াহাব মিয়ার মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এসময় মুক্তিযোদ্ধা হামিদ মিয়ার পক্ষে সহিত মেম্বার ও ওয়াহাব মিয়ার পক্ষে বাবুল মিয়ার লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।
এসময় ওয়াহাব মিয়ার পক্ষের লোকজন সহিদ মেম্বারের বাড়ি ও দোকান ঘর ঘেরাও করে হামলা ও লুটপাট চালায়। খবর পেয়ে আখাউড়া থানার অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ ও সহিদ মেম্বার জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে নয়াদিল গ্রামের বাবুলের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। হামলাকারীরা দোকানের ক্যাশ ভেঙে নগদ টাকাসহ দামী একাধিক মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় বাবুলের নেতৃত্বে তার কিশোর গেং সদস্যরা সহিত মেম্বারের বাড়িতেও হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে।
আখাউড়া থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার সঙ্গে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।