বিজয়নগরের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উড়ছে জাতীয় পতাকা,অফিস তালাবদ্ধ

বিজয়নগর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 10 March 2021, 218 বার পড়া হয়েছে,

বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) সংবাদদাতাঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের অনুপস্থিতিতে উড়ছে জাতীয় পতাকা,স্কুলের বারান্দায় লতাপাতা গাছের পাতা,মাঠে গরু-ছাগল চারণ,স্কুল মাঠে ডাম্পিং, অফিস তালাবদ্ধসহ নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ৯ই মার্চ রোজ মঙ্গলবার বেলা ১১ টার সময় মেঘশিমুইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষ তালাবদ্ধ কিন্তু জাতীয় পতাকা দক্ষিণা বাতায়নে পত-পত করে উড়ছে। সাংবাদিকদের উপস্থিতি জানতে পেরে উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তফা জামান দৌড়ে এসে পাশের একটি মুদি মালের দোকান থেকে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষের চাবি নিয়ে অফিস কক্ষ খুলেন। বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষ বন্ধের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকল শিক্ষকদের তিনি ছুটি দিয়েছেন। অফিস কক্ষ বন্ধ কিন্তু বাহিরে জাতীয় পতাকা উড়ছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তার কোন সদোত্তর দিতে পারেন নাই। বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতির ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, সভাপতি মোঃ আব্দুল মন্নাফ তার শশুর হয়। বিদ্যালয়ে বরাদ্ধকৃত ১৫০০০০/- টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান এবং সাংবাদিকদের সাথে খারাফ আচরণ ও তথ্য উপাত্ত দিতে অস্বীকৃতি জানান এবং সাথে সাথে হরষপুর ইউনিয়ন সমন্বয়কারী ও তার ভগ্নীপতি,হরষপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যারয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হুমায়ুন কবীরের সাথে মুঠোফোনে আলাপ করে তার অবস্থান আরো শক্তিশালী করেন। পরে হুমায়ুন কবীর সাংবাদিকদের সাথে ফোনালাপে এসব অন্যায় অপকর্মকে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন। চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে উচ্চ বাচ্যে তিনি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি পরিচয় দিয়ে সাংবাদিকদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি মোঃ মন্নর আলী জানান, তিনি সহ সভাপতি থাকা অবস্থায় বিদ্যালয়ের নানান বরাদ্ধ এবং বিভিন্ন বিষয়ের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তিনি অবগত নন। এত দিন শশুর জামাই মিলে একক ভাবে যাবতীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন কারো কোন স্বাক্ষর ও অবগত করার প্রয়োজন মনে করেন নাই। এ বিষয়ে বিজয়নগর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শাহনেওয়াজ পারভীন জানান, সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক ছাত্র/ছাত্রী ভর্তি ও বই বিতরনের জন্য প্রতিটি বিদ্যালয়ে সকল শিক্ষকদের উপস্থিতিতে অফিস কক্ষ খুলে রাখার বিধান রয়েছে। উক্ত বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে বিহিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  • 60
    Shares