আখাউড়ায় জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে বাড়িঘর ভাংচুর ও আগুন লাগানোর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

আখাউড়া, 15 July 2020, 281 বার পড়া হয়েছে,

মোহাম্মদ আবির ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন কর্তৃক বাড়িঘর ভাংচুর ও আগুন লাগানোর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আখাউড়া পৌরশহরের দেবগ্রাম গ্রামের রফিজ খাঁনের ছেলে ফারুক খাঁনের বাড়িতে তাদের প্রতিপক্ষের লোকজন মিলে আগুন লাগানোর অভিযোগ করেছে ফারুক খান ও তার পরিবারের লোকজন।

সোমবার রাত সাড়ে ১১ টার সময় ফারুক খানের টিনের ঘরে আগুন লাগানো হয়েছে বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে ফারুক খান অভিযোগ করে বলেন,গত ৩০ বছর ধরে আমরা এই জায়গাটা ভোগদখল করে খাইতেছি। এখানে আমাদের ঘর আছে, গাছ আছে, পুকুরে মাছ চাষ ও করতেছি। গতরাতে আনিস ও তার সাথের আরো কয়েকজন মিলে আগুন লাগিয়ে দৌড়ে চলে গেছে।এই ঘটনায় আজ সকালে আমরা মামলা করার ব্যাপারে চিন্তা-ভাবনা করতেছিলাম।

উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়ার জন্য আনিস ও তার পরিবারের লোকজন মিলে নিজেরা তাদের বাড়িঘর ভাঙচুর করে।

জায়গা নিয়ে ঝামেলা মূলত মদন খাঁর ফ্যামিলির সাথে রফিজ খাঁ ও সেতু খাঁর ফ্যামিলির।

এই বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল হকের ছেলে ছোটন হক(৩২)বলেন,দৌড়ে পালানো ২ জন লোকের মধ্যে ১ জনের মাথার মধ্যে হেলমেট পরা এবং আরেকজন বয়ষ্ক লোক।

আগুন লাগানোর সাথে জড়িত হওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে পাল্টা অভিযোগ করে আনিস বলেন,আজ সকাল সাড়ে ৮ টায় ঘুম থেকে উঠে দেখি ফারুক ও তার পরিবারের লোকজন আমার বাড়িঘর অযথা ভাংচুর করছে।আমি ফারুকের বাড়িতে আগুন লাগাইনি।আগুন লাগানোর কোনো প্রমাণ দিতে পারলে আমার বিচার করা হোক।

এ বিষয়ে দেবগ্রামের কাউন্সিলর বাবুল মিয়া বলেন,কে বা কারা আগুন লাগাইছে তা নির্দিষ্ট করে কেউ বলতে পারেনি।তবে কয়েকজনকে দৌড়ে চলে যেতে দেখেছে স্থানীয় লোকজন।আন্দাজি কারো নাম বললে তো আর হবেনা।আনিস তার বাড়ির পাশে পুকুরের পাড়ে সবজি গাছের জন্য মাচা দিতে গেলে ফারুক বাঁধা দেয়।গত দুই তিন মাস ধরে ফারুক ও আনিসের মধ্যে এটা নিয়ে রেশারেশি চলতেছে।মূলত তাদের ঝগড়ার সূত্রপাত এখান থেকেই।