রাইট টাইমস ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের সচেতনতায় কর্মহীন, অসহায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ালেন বিজয়নগরের এক ইউপি চেয়ারম্যান। তিনি তার ব্যক্তিগত অর্থায়নে ৫২ টি পরিবারের হাতে তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজয়নগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জিয়াউল হক বকুল নিজেই রোববার (২৯ফেব্রুয়ারি) সকালে এসব খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে হাজির এ খাদ্য সামগ্রীগুলো পৌঁছে দিয়েছেন।তিনি তার নির্বাচনী এলাকা ইছাপুরা ইউনিয়নের মির্জাপুর, ফুলবাড়িয়া, আড়িয়ল, তুলাতলা, ধীতপুর , ইছাপুরা, ডালপা, কুতুবপুর, খাদুরাইল গ্রামের ৫২ পরিবারের মধ্যে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। খাদ্য সামগ্রী গুলোর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, চিনি, লবণ, তৈল, সাবান, পেয়াজ, আলু। চেয়ারম্যান জিয়াউল হক বকুল বলেন, মানুষ মানুষের জন্য। এই ক্রান্তিকালে আমার ইউনিয়নের অসহায় গরীব ও দারিদ্র মানুষের কষ্টকে দূর করার লক্ষ্যে এবং তাদের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য আমি আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে কিছু দিতে পেরেছি বলে প্রভূর দরবারে শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি। অতীতের ন্যায় আমি আমার ইউনিয়ন বাসির পাশে ছিলাম এখনো আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকব। ইনশাল্লাহ।"/>

বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী পৌছিয়ে দিলেন ইছাপুরা ইউপি চেয়ারম্যান

বিজয়নগর, 29 March 2020, 325 বার পড়া হয়েছে,

রাইট টাইমস ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের সচেতনতায় কর্মহীন, অসহায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ালেন বিজয়নগরের এক ইউপি চেয়ারম্যান। তিনি তার ব্যক্তিগত অর্থায়নে ৫২ টি পরিবারের হাতে তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজয়নগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জিয়াউল হক বকুল নিজেই রোববার (২৯ফেব্রুয়ারি) সকালে এসব খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে হাজির এ খাদ্য সামগ্রীগুলো পৌঁছে দিয়েছেন।তিনি তার নির্বাচনী এলাকা ইছাপুরা ইউনিয়নের মির্জাপুর, ফুলবাড়িয়া, আড়িয়ল, তুলাতলা, ধীতপুর , ইছাপুরা, ডালপা, কুতুবপুর, খাদুরাইল গ্রামের ৫২ পরিবারের মধ্যে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। খাদ্য সামগ্রী গুলোর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, চিনি, লবণ, তৈল, সাবান, পেয়াজ, আলু। চেয়ারম্যান জিয়াউল হক বকুল বলেন, মানুষ মানুষের জন্য। এই ক্রান্তিকালে আমার ইউনিয়নের অসহায় গরীব ও দারিদ্র মানুষের কষ্টকে দূর করার লক্ষ্যে এবং তাদের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য আমি আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে কিছু দিতে পেরেছি বলে প্রভূর দরবারে শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি। অতীতের ন্যায় আমি আমার ইউনিয়ন বাসির পাশে ছিলাম এখনো আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকব। ইনশাল্লাহ।