নাসিরনগরে চাদাঁবাজীর মামলায় প্রবাসীর নামে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা

নাসিরনগর, 5 March 2020, 816 বার পড়া হয়েছে,

মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), জেলার নাসিরনগর উপজেলায় মিথ্যা চাদাঁবাজীর মামলায় প্রবাস ফেরত এক অসুস্থ্য প্রবাসীর নামে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারীর ঘটনায় এলাকায় তুলপাল সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের শংকরাদহ গ্রামে। সরেজমিনে এলাকায় গেলে কান্না জনিত কন্ঠে মিথ্যা চাদাঁবাজি মামলার অসুস্থ্য আসামী শফিকুল ইসলাম ওরুফে ঊসমান মিয়া, ও তার স্ত্রী শাহেনা বেগম বেলী, হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি হাজী মোঃ ফারুক মিয়া, সিদ্দিক পাঠান, কুলসুম বেগম, ইকরাম চৌধুরীর চাচা ফিরোজ মিয়া চৌধুরী, স্থানীয় মাটি কাটার শ্রমিক সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজনের সাথে কথা বললে, তারা জানায় ইকরাম চৌধুরী একজন মামলা বাজ । সে এ পর্যন্ত এলাকার বিভিন্ন লোকজনের নামে অনেক মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা দায়ের করে রেখেছে। এমনকি তার মামলা থেকে বাঁদ পরেনি তার আপন চাচা ১২০বছর বয়স্ক ফিরোজ মিয়া চৌধুরী। মিথ্যা চাদাঁবাজি মামলার বাদী একজন অর্ধ পাগল বলে জানান হরিপুর ইউ.পি চেয়ারম্যান দেওয়ান আতিকুর রহমান আখিঁ। জানা যায় শংকরাদহ গ্রামের সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর দুই ছেলে প্রবাসী ঈসা চৌধুরী ও তার ছোট ভাই ইকরাম চৌধুরীর মাঝে জায়গা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছে। ঈসা চৌধুরী প্রবাসে যাওয়ার পূর্বে তার সমস্ত সম্পত্তি দেখা শোনা করার জন্য প্রতিবেশি প্রবাস ফেরত অসুস্থ্য সিরাজুল ইসলাম ঊসমান মিয়াকে লিখিত ভাবে দায়িত্ব দেয়। প্রতিবেশি ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় ঊসমান দায়িত্ব পাওয়ার পর ঈসা চৌধুরীর সম্পত্তি দেখাশোনা করতে গেলে ইকরাম চৌধুরী তার নামে জি আর ৩৪৭ এটি চাদাঁবাজির মামলা দায়ের করে। স্থানীয়রা জানায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই পঙ্কজ দেবনাথ মিথ্যা চাদাঁবাজির মামলাকে সত্য বলে আদালতে র্চাজসিট দাখিল করলে আদালত ঊসমানের নামে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারী করেন। এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা এস.আই পঙ্কজ দেবনাথ জানায়, স্বাক্ষ প্রমানের ভিত্তিতে আদালতে চার্জসিট প্রেরণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার বাদী একরাম চৌধুরী জানায়, শফিকুল ইসলাম ঊসমান তার কাছে মোবাইলে ৭ লক্ষ টাকা চাদাঁ দাবী করেছিলেন। কোন মোবাইল রেকর্ড আছে কিনা, জানতে চাইলে তা দিতে ব্যার্থ হয় বাদী ইকরাম চৌধুরী।

Leave a Reply