কসবায় প্রক্সি দিতে আসা শিক্ষার্থীর কারাদন্ড

জাতীয়, 28 September 2019, 346 বার পড়া হয়েছে,

রুবেল আহমেদ, কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি ॥
কসবায় ২৮ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকালে স্নাতক (পাস) তৃতীয় বর্ষের চুড়ান্ত পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে আসা শিক্ষার্থী ফাহিম ভূইয়া (২১)কে এক বছরের কারাদন্ড দিলেন ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী হাকিম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।
কারাদন্ড প্রাপ্ত ফাহিম ভূইয়া কসবা উপজেলার বিনাউটি ইউনিয়নের সৈয়দাবাদ গ্রামের ফরিদ মিয়ার পুত্র। তিনি ২০১৮ সনে এইচ.এস.সি পরীক্ষায় পাশ করে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিষয়ে ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সম্মান প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তাকে ২৮ সেপ্টেম্বর বিকালেই ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া জেল হাজতে পাঠিয়েছেন পুলিশ।
ভ্রাম্যমান আদালত ও কলেজ সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত কসবা উপজেলার সৈয়দাবাদ আদর্শ সরকারি কলেজের শিক্ষার্র্র্থীদের পরীক্ষার কেন্দ্র কসবা টি. আলী কলেজে। গতকাল শনিবার ডিগ্রি (পাস) তৃতীয় বর্ষের চুড়ান্ত পরীক্ষার সমাজ কর্মের পঞ্চমপত্র বিষয়ের পরীক্ষা ছিল। ওই পরীক্ষায় সৈয়দাবাদ আদর্শ সরকারি কলেজের পরীক্ষার্থী মো. শাহাদৎ হোসাইন পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। তার পরিবর্তে পরীক্ষায় অংশ নেয় ফাহিম ভূইয়া। বিষয়টি পরীক্ষা পরিচালনা পর্ষদ ও পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা সরকারি কর্মকর্তা মো. হাদিউল ইসলামের নজরে আসেন।
পরে পুলিশ, সরকারি কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালত ফাহিম ভূইয়াকে আটক করেন। এ সময় নির্বাহী হাকিম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ভ্রাম্যমান আদালত স্থাপন করেন। ওই আদালতে ফাহিম ভূইয়া তার দোষ স্বীকার করায় তাকে ১৯৮০ সনের পাবলিক পরীক্ষা সমুহ (অপরাধ) আইনের ৩ ধারা মোতাবেক এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন।
নির্বাহী হাকিম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, অন্যের পরীক্ষা দিতে আসায় ফাহিম ভূইয়া ভ্রাম্যমান আদালতের কাছে দোষ শিকার করেছেন। তাকে ১৯৮০ সনের পাবলিক পরীক্ষা সমুহ (অপরাধ) আইনের ৩ ধারা মোতাবেক এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।
কসবা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ লোকমান হোসেন বলেন, কারাদন্ড প্রাপ্ত ফাহিম ভূইয়াকে শনিবার বিকালেই ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।